চোখের নিচের ফোলাভাব হওয়ার কিছু কারণ ও প্রতিকার

অনেকে জানেন ডার্ক সার্কেল কেন হয়। কিন্তু অনেক সময় চোখের নিচের অংশ ছোট ফুলে থাকে। চোখের নিচের ফোলাভাব সমস্যাতে অনেকেই ভুগেন। চোখের নিচের ফোলাভাব সমস্যাটাকে ইংলিশে বলা হয় আই ব্যাগ।

চলুন জেনে নিই, চোখের নিচের ফোলাভাব বা আই ব্যাগ হওয়ার ৫টি কারণ

ভালো ঘুম না হলে

চোখের নিচে ফুলে যাওয়ার একটা বড় কারণ ঠিকমতো ঘুম না হওয়া। যারা জোর করে রাতে জেগে থাকেন এবং দিনে ঘুমিয়ে রাতের ঘুম পূর্ণ করার চেষ্টা করেন তবে শরীর নিজের মধ্যে পানি ধরে রাখতে শুরু করে। একে বলে ‘ওয়াটার রিটেশন’। আর শরীরে অযাচিত পানি জমে থাকার কারণে অনেকের সারাদিন মুখ ফুলে থাকে আবার অনেকের চোখের নিচে ব্যাগ চলে আসে। বছরের পর বছরের অনিয়মে এই ব্যাগ স্থায়ী হয়ে যায়। এবং চেহারায় একটা পার্মানেন্ট বয়স্ক, টায়ার্ড ভাব চলে আসে।

খুব দ্রুত ওজন কমালে

আপনি হয়তো খুব বাজেভাবে ক্র্যাশ ডায়েট করে ওজন কমিয়েছেন। আসলে ওজন কমেনি বডিতে যেটুকু অতিরিক্ত পানি জমে ছিল সেটা হঠাৎ বেড়িয়ে গেছে। সো বডির স্কিন লুজ হয়ে গেছে। একই সাথে বডি ট্রাই করছে হারিয়ে যাওয়া পানি আবার পড়িমাড়ি করে ফিল আপ করতে। ফলাফল, কিছুদিনের মধ্যেই চোখের নিচের লুজ স্কিনের তলায় পানি জমে আই ব্যাগ তৈরি হওয়া। যে মানুষের কোনদিন আই ব্যাগ ছিল না তারও হঠাৎ করে আই ব্যাগ তৈরি হতে পারে।

অতিরিক্ত লবণ খাওয়া

একজন মানুষের দিনে সবমিলিয়ে ১ চা চামচের বেশি লবন খাওয়ার দরকার হয় না। এবং রান্নার ভেতরের লবণটাও কিন্তু এর ভেতরেই চলে আসবে। এটুকু লবন কিন্তু আপনি যেকোনো রেস্টুরেন্টের ২ টা চিকেন ফ্রাই, ১ টা লার্জ ফ্রেঞ্চ ফ্রাই আর এক গ্লাস কোল্ড ড্রিঙ্কেই পেয়ে যাবেন। কিন্তু আপনি নিশ্চয়ই শুধু এটা খেয়েই সারাদিন পার করবেন না! সো বুঝতে পারছেন আপনি বাইরে খেয়ে রোজ কতগুলো অতিরিক্ত লবণ খাচ্ছেন? আর যত অতিরিক্ত লবণ খাবেন ততই আপনার বডিতে অতিরিক্ত পানি জমবে। এবং যত পানি জমবে ততই আপনার আই ব্যাগ বাড়বে।

হরমোন লেভেল ওঠা নামা করে

আসলে আই ব্যাগ ফর্ম করে দুটি কারণে। এক, পানি জমে, দুই, চোখের নিচে ওই নির্দিষ্ট এলাকায় ফ্যাট জমা হবার কারণে। হরমোন লেভেলের ওঠা নামার কারণে শরীরে পানি জমা এবং ফ্যাট জমা দুটোই চেঞ্জ হতে পারে। এবং একারণে হঠাৎ করে আপনার ফেস শেপ চেঞ্জ হওয়া এবং আই ব্যাগ দেখার মতো সমস্যা হতে পারে।

আপনার বংশগত সমস্যা

বাবা মা কারো যদি আই ব্যাগ থেকে থাকে তবে সন্তানেরও হতে পারে। এটা অত্যন্ত কমন। এই ধরণের সমস্যায় কোন হোম রেমেডি কাজ করবে না।

প্রতিকারের জন্য ফ্রিজে ইউজড টি ব্যাগ অথবা দুটো চা চামচ রেখে দিন। সকালে জাস্ট ৫ মিনিটের জন্য দুই চোখের উপরে ঠাণ্ডা ব্যাগ বা চামচ দিয়ে রাখুন।

অবশ্যই দিনে ৩ লিটার করে পানি খাবেন। যত বেশি পানি খাবেন তত বেশি আপনার শরীর নিজে থেকে জমিয়ে রাখা পানি বের করে দেবে। সাথে সাথে রোজ শসা খাবেন, লেবুর রস খাবেন এবং ২-৩ কাপ গ্রিন টি খাবেন। অতিরিক্ত লবণ এবং চিনি খাওয়া, বাজে ডায়েট হ্যাবিটের কারণে শরীরে পানি জমে আই ব্যাগ তৈরি হয়ে থাকলে রেগুলার এই টিপসগুলো ফলো করলে আশা করা যায় এই সমস্যা সবসময় কন্ট্রোলে রাখতে পারবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here